শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৭:০২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :

হাযিয়া সোফিয়া

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১১ জুলাই, ২০২০, ২.১৪ পিএম
  • ৩৬৯ বার পঠিত

এইচ এম ই রিমন

হাযিয়া সোফিয়া ১৫০০ বছরের পুরাতন ভবন।
১৪৫৩ সালে অটোমান সাম্রাজ্যের সময় সুলতান মেহমুদ-২ এটিকে মসজিদে রুপান্তরিত করেন। অটোমান সময়ে এটিতে অনেক সংস্কার করা হয়। মসজিদের পাশে মিনার স্থাপন কটা হয়, ভেতরেও কিছুটা পরিবর্তন করা হয়।

তবে, পূর্বে এটি ছিল গ্রীক খ্রিস্টান অর্থোডক্স গীর্জা। অটোমানের পূর্বে এর বয়স হয়েছিল ৯০০ বছর। ১৯৩৪ সালে কামাল আতাতুর্ক এটিকে জাদুঘর করার আইন পাস করেন।

এখন সর্বোচ্চ কোর্টের রায় অনুযায়ী এটিকে পুনরায় মসজিদে রুপান্তরিত করার জন্য আইন পাস করা হয়। এটি নিয়ে সারা বিশ্বের অর্থোডক্স খ্রিস্টানের অনুসারীরা নানারকম প্রশ্ন এবং অভিযোগ করছে। তারা এই আইন হতে সরে আসতে তুরস্ককে অনুরোধ করছে।

কোর্টের রায় অনুসারে অটোমান সময়ে সুলতান এটিকে ক্রয় করে মসজিদে রুপান্তরিত করেন। কামাল আতাতুর্ক আইন না মেনে এটিকে জাদুঘর হিসেবে আইন পাস করেন। ১৭ বছর যুক্তিতর্কের পর কোর্ট কামাল আতাতুর্কের পাস করা আইনটি অবৈধ ঘোষণা করেছে। ফলে এটি পুনরায় মসজিদ হিসেবে চালু থাকবে কিন্তু দর্শনার্থীদের জন্য খোলা থাকবে।

আমার প্রশ্ন হচ্ছে এই সম্পূর্ণ প্রক্রিয়াটি কি ইসলাম সম্মত। ইসলামের শিক্ষা কি বলে? এটিকে আইন অনুসারে মসজিদ বানানো হয়ত ঠিক আছে, কিন্তু ইসলামের অন্তর্নিহীত তাৎপর্য কি বলে? এসবের উত্তর দেয়ার মত ইসলামিক স্কলার কতজনই বা আছেন?

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

doeltv38GRD5838
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By ATM News