রবিবার, ০১ অগাস্ট ২০২১, ১০:৪৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হওয়া মোহাম্মদ হোসাইন এর এতিম দু শিশুর জন্য পূণর্বাসন ফাউন্ডেশন গঠন ও সহায়তা প্রদান; চলাচলের অনুপযোগী দোয়ারাবাজারের লাফার্জ ক্যাম্পের সামনের সড়ক: বেড়েই চলছে জনদূর্ভোগ  ধুনটে কনস্টেবল জগদীশ চন্দ্রকে অবসরকালীন বিদায় জানালো থানা পুলিশ খুলনা বিভাগে করোনায় ১৯ জনের মৃৃত্যু টেকনাফে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় এক রোহিঙ্গা উদ্ধার টানা বৃষ্টিতেপ্লাবিত কয়রা উপজেলা। করোনায় খুলনা বিভাগে ২৪ ঘন্টায় ৩৪ জনের মৃৃত্যু। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের 1 বছর একশত ১৫ দিন পার হলো বৃহস্পতিবার  বদরখালী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ওসমান গণির আকষ্মিক মৃত্যুতে এমপি জাফর আলম বিএ অনার্স এম এ এর শোক চকরিয়ায় চলাচলের রাস্তা কাঁটাতারের বেড়া দিয়ে ঘিরে রাখায় পথচারীদের হাঁটতে দারুণ ভোগান্তি 

সীতাকুন্ডে স্বাধীনতার ৫০ বছরেও সংস্কার নেই মুক্তিযোদ্ধের বধ্যভূমি

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০২০, ৭.৪৩ পিএম
  • ৭৬ বার পঠিত

সীতাকুন্ডে স্বাধীনতার ৫০ বছরেও সংস্কার নেই মুক্তিযোদ্ধের বধ্যভূমি

রিপোর্ট: নাছির উদ্দিন শিবলু দৈনিক এটিএম নিউজ , সীতাকুন্ডঃ

সীতাকুন্ডে মহান স্বাধীনতার ৫০ বছরেও সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হয়নি স্বাধীনতার বধ্যভূমি। স্থাপনা চিহ্নিত শহীদ মিনারগুলোতে পুষ্পমাল্য অর্পনের মাধ্যমে শহীদদের স্বরন করা হলেও নানান স্থনে ছড়িয়ে থাকা বধ্যভূমিগুলো থেকেছে সবার অগোচরে। ফলে অযত্ন – অবহেলা ও দখলের কবলে পড়ে বিলীনের হতে চলেছে অধিকাংশ বধ্যভ’মি। এছাড়া গন সৌচাগার নির্মানের মাধ্যমে বিলীন প্রায় বধ্যভূমি দখলের অভিযোগও রয়েছে একটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে।

সীতাকুন্ড অঞ্চলে ১৯ মুক্তিযোদ্ধার সাথে ১৬০ গন শহীদ হয়েছেন উপজেলার নানা স্থানে। উপজেলার নানা স্থনে বিভিন্ন দিবসে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের স্বরনে স্থাপন করা হয় শহীদ মিনার। প্রতি বছর বিভিন্ন দিবসে স্বাধীনতার শহীদদের শ্রদ্ধা জানানো হলেও গন শহীদরার পড়ে রয়েছে বধ্য ভূমিতে। আর দীর্ঘদিন পর্যন্ত অজানা অবস্থায় পড়ে থাকায় নির্মিত হয়। কিন্তু গন শহীদদের শ্রদ্ধায় বধ্যভূমি তৈরী হলেও অবহেলা শিকার হন গন শহীদরা।

রেলওয়ে স্টেশন বধ্যভ’মি, চন্দ্রনাথ ধাম বধ্যভ’মি, সোনাইছড়ি ইউনিয়নের পাক্কার রাস্তা বধ্যভ’মি, লালবেগ সিএনসি এস্টেশন সংলগ্ন বধ্যভ’মি, হাটহাজারী লিং রোড বধ্যভ’মি। তবে এর মধ্যে রেজিস্ট্রিভুক্ত বধ্যভ’মি স্বৃতি চিহ্ন দ্বারা সংরক্ষিত হলেও যত্ন অবহেলায় হয়ে পড়েছে অরক্ষীত। ফলে রক্ষনা-বেক্ষন ও তদারকি অভাবে মুচে যেতে চলেছে স্বৃতি চিহ্ন। সে সাথে ব্যাক্তি বিশেষ দখলে নিয়ে বধ্যভূমিতে গড়ে তুলছে স্থাপনা।

সোনইছড়ি ইউনিয়নের লালবেগ এলাকায় মহাসড়ক সংলগ্ন বধ্যভ’মির অংশ বিশেষ দখল কওে স্থপনা করেছে ফিলিং স্টেশন। এছাড়া গনসৌচার স্থাপনের মাধ্যমে অমর্যদাপূর্ন করে পরিত্যক্ত করা হয়েছে বধ্যভূমিকে। এ ঘটনায় বারবার মক্তিযোদ্ধাদের পক্ষ হতে প্রতিবাদ করা হলেও কর্ণপাত করছে না স্টেশন কর্তৃপক্ষ।

এদিকে পৌরসভার রেল লাইন সংলগ্ন বধ্যভ’মিসহ আরো একাধিক বধ্যভূমি দখল-বেদখলের কবলে পড়ায় দিনে দিনে বিলিন হতে চলেছে স্থাপনা সমূহ। এ অবস্থায় যুদ্ধের সময় হারিয়ে যাওয়া বহু লোকগুলোর হুদিস আজো পাইন পরিবারগুলো। এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে বিলিন হওয়া বধ্যভ’মি সংরক্ষনের উদ্যোগ গ্রহন না হওয়ার হতাশা ক্ষোভ প্রকাশ করেন মুক্তিযোদ্ধারা।

মুক্তিযোদ্ধা মো. ফোরকান বলেন,‘কিছু মুক্তিযোদ্ধার স্বৃতি চিহ্নে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হবে, আর কিছু মুক্তিযোদ্ধা অবহেলার পাত্র হবে এটা কখনও মেনে নেয়ার মতো না। একজন সত্যিকার মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে বধ্যভ’মিতে পড়ে থাকা মুক্তিযোদ্ধাদের কবর সংস্বকারের দাবী জানাচ্ছি।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

doeltv38GRD5838
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By BanglaHost