শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৬:১৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :

সমাজে সাহেদ, ডা. সাবরিনা তৈরি হয় কেন?

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৫ জুলাই, ২০২০, ৪.০৭ পিএম
  • ৩২৭ বার পঠিত

এইচ এম ই রিমন

সাহেদের দাদা ওপারের প্রতিবেশি দেশ থেকে এসেছেন। শিক্ষিত লোক ছিলন। সাতক্ষীরায় তাদের মার্কেট ছিল। মা জেলা মহিলা লীগের সম্পাদক ছিলেন। এত কিছুর থাকার পরও সাহেদের সমস্যাটা কোন জায়গায়?

ডা. সাবরিনার বাবা সচিব ছিলেন। ঢাকা শহরে নিজেদের বাড়ি আছে। নিজে কার্ডিয়াক সার্জারি করেন। বিয়ে করেছেন আরিফ নামের বহুবিবাহে আবদ্ধ এক অতি চালাক ব্যক্তিকে। ডা. সাবরিনার সমস্যাটা কোথায়?

আমার মতে সমাজের প্রধান সমস্যা হচ্ছে সাকসেস নামের ভূত। টাকা থাকলেই আমরা মনে করি সাকসেসফুল। প্রতি বছর চাকরিতে প্রমোশন পাওয়াকে আমরা যোগ্যতা মনে করি।

আমাদের মোটিভেশনাল স্পীকাররাও সব ভিন্ন তরিকায় আছে। তারাও যুব সমাজকে প্রতিনিয়ত ট্রেনিং দেয় কিভাবে অল্প সময়ে ব্যক্তিগত গাড়ির মালিক হওয়া যায়। কিভাবে গুছিয়ে কথা বলা যায়? কিভাবে কফি খাইতে হয়? কিভাবে ভ্যালেন্টাইনস ডে পালন করবে? আমাদের বিশ্বসেরা মোটিভেশনাল স্পীকারও সারা দেশে মাইক্রো ক্রেডিটের নামে চড়া সুদকে প্রাতিষ্ঠানিক ভিত্তি দিয়েছেন। মুসলিম সমাজে চড়া সুদে লোন নিয়ে কতজন গরীব ব্যবসা করে ভাগ্যের পরিবর্তন করতে পেরেছে?

ব্যক্তিগতভাবে আমাকে কেউ যদি প্রশ্ন করে কত টাকা বেতন পায়, ব্যাংকে কত টাকা আছে, ফ্ল্যাট কিনেছে কিনা; আমি সেই মুহুর্তে থেকে তাদেরকে এভয়েড করি। এমনকি আমার বাবা-মা ও আমাকে কোনদিন বেতনের কথা জিজ্ঞেস করেন নি? সমাজে এখন বেতন দিয়ে মানুষের যোগ্যতা মাপা হয়।

আমার মতে, সমাজে ভূল মোটিভেশানই হচ্ছে প্রধান সমস্যা। সাকসেস নামের ভূল ওষুধ গুলিয়ে খাওয়ানো হচ্ছে। ছাত্র-ছাত্রীদের প্রধান টার্গেট জীবনে টাকা ইনকাম করা। অথচ দেশের সেরা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা শেষ করে একজন স্টুডেন্ট নিজের থিসিস পেপার লিখতে পারে না। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক থিসিস চুরি করে। কার্ডিয়াক হাসপাতালে নিজে নিজেই বিভাগীয় প্রধানের সাইনবোর্ড টাঙিয়ে দেয়। দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শত-শত প্রফেসর আছেন যাদের কোন গবেষণা নেই। বিশ্ববিদ্যালয়ে সঠিক কোন পড়াশোনা হয় না। কেন হয় না সেটা আরেকদিন লিখব।

সাহেদ, ডা. সাবরিনার প্রধান সমস্যা চিন্তায়। মানসিকভাবে তারা অসুস্থ। কিছু মানুষ করোনার সময় জীবনের মায়া ত্যাগ করে কাজ করছে, অথচ বিশাল একটা শ্রেণী করোনার সিজনে কিভাবে নিজের পকেট ভারি করি করা যায় সেই ধান্দা করছে। নিজের স্বার্থের জন্য তারা দেশের মানুষকে বিপদে ফেলেছে, সারা পৃথিবীতে বাংলাদেশকে অপমান করেছে। ইতালির মত অতি মানবিক দেশ বাঙালির উপর বিশ্বাস হারিয়েছে। অথচ ইউরোপে ইতালিতেই সবচেয়ে বেশি সংখ্যক বাংলাদেশীকে বৈধ করেছে।

আমাদের দেশে সুশিক্ষা নিশ্চিত করা না গেলে প্রতিনিয়ত সাহেদ, ডা. সাবরিনা তৈরি হবে। সাহেদ গ্রেপ্তারের খবরের নিচে অসংখ্য ক্রসফায়ারের আবেদন পড়বে। আর ডা. সাবরিনা আটকের সংবাদের নিচে কুরুচিপূর্ণ কমেন্ট চালু থাকবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

doeltv38GRD5838
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By ATM News