মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ০১:১৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :

ভূয়া মোটিভেশান

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৭ জুলাই, ২০২০, ১২.২৪ এএম
  • ৮১ বার পঠিত

এইচ এম ই রিমন

সাকসেস আর মোটিভেশনে কি আদৌ কোন ফিলোসোফিক উপাদান আছে।

প্রাচীন গ্রীক ফিলোসফি কিংবা ইসলামিক ফিলোসফি কোথাও কি সাকসেস বলতে টাকা-পয়সাকে বুঝানো হয়েছে?

বাংলাদেশে একজন বিখ্যাত মোটিভেশনাল স্পীকার আছেন যিনি কথায় কথায় নিজের গাড়ির গল্প শোনান।
গাড়িতে চড়তে পারলে মনে হয় জীবনের উদ্দেশ্য হাসিল হয়ে গেল। তরুণ সমাজকে গাড়ির গল্প শুনিয়ে কি লাভ?

নতুন একটা ট্রেন্ড চালু হয়েছে। গরীব মানুষের ছেলে-মেয়েদের বিসিএসে চাকরি পাওয়ার মনে হয় কোন অধিকার নেই, কেউ পেয়ে গেলে তাকে নিয়ে নিউজ করতে হবে। চারিদিকে হৈচৈ পড়ে যায়। মনে হয় হিমালয় জয় করে ফেলেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ শেষ করে রাত-দিন পড়াশোনা করে প্রস্তুতি নিয়ে সরকারি চাকরি পেয়েছে। এটা তার নিজের জন্য ভাল। এটা দিয়ে আপনার কিংবা জাতির কি পরিবর্তন আসবে?
কেউ না কেউ তো সরকারি চাকরি করবে। যতদিন সরকার থাকবে, ততদিন সরকারি চাকরি থাকবে।

বাংলাদেশের মানুষের সাকসেসের পরিমাপ হচ্ছে একটি ফ্ল্যাট, গাড়ি এবং ক্যাশ টাকা। আপনি চাকরি করেন, ব্যবসা করেন, ইউটিউব করেন কিংবা ওয়াজ করেন টার্গেট কিন্তু ফিক্সড , প্রথমেই একটা ফ্ল্যাট কিনতে হবে। তারপর ধীরে ধীরে একটা গাড়ি কিনতে হবে। সাকসেসফুল হওয়ার জন্য বেশিরভাগ ক্ষেত্রে অবৈধ উপায়ে ইনকামও জায়েজ।

এগুলো থেকে বের হয়ে আসতে না পারলে দেশের মানুষকে কখনও স্থির করা যাবে না।

দেশের মানুষ যতদিন পর্যন্ত সব ধরনের কাজকে সমান গুরুত্ব দিবে না, ততদিন দেশের পরিবর্তন আসবে না। দেশের মানুষ শান্তিতে থাকবে না।

বাংলাদেশের মোটিভেশনাল স্পীকাররা সমাজে অশান্তি আর অস্থিরতা ছড়িয়ে দিচ্ছে। এরা সব ভূল রাস্তায় আছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

doeltv38GRD5838
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By ATM News