রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:৫৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :

বদরখালীর একটি লবণ ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৮ অক্টোবর, ২০২০, ৫.০০ পিএম
  • ২১৫ বার পঠিত

বদরখালীর একটি লবণ ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট ঈদগাঁও এর সাগরের নামে চট্রগ্রামস্থ কনফিডেন সল্ট মিলে লবণ দিয়ে এখন ফতুর

দৈনিক এটিএম নিউজ কক্সবাজার!

………………………………………………………… বদরখালীর একটি লবণ ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট লাভের আশায় ব্যবসা করে নিজেদের পুঁজি পর্যন্ত হারিয়ে এখন মাথায় হাত দিয়েছে।এমনকি পথে বসার উপক্রম হয়েছে। তা ও কক্সবাজার সদর উপজেলার ঈদগাঁও এর গোয়াখালীর আলম সওদাগরের ছেলে আনচার উল্লাহ্ সাগর এর খপ্পরে পড়ে। এ অভিযুক্ত সাগর ঈদগাঁওস্থ তার অফিসটি গুঁটিয়ে ফেলে এখন আত্বগোপনে চলে যাওয়ায় একেবারে হতাশ হয়ে পড়েছেন বদরখালীর লবণ ব্যবসায়ী জালাল উদ্দীন গংরা। কক্সবাজার জেলার চকরিয়া উপজেলার বদরখালী ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা লবণ ব্যবসায়ী মনর আলমের পুত্র জালাল উদ্দীন জানান, বদরখালীর ৬/৭ জনের একটি সিন্ডিকেট বিভিন্ন জনের কাছ থেকে ধার কর্য করে ২০/৩০ লাখ টাকা পুঁজি দিয়ে ২০১৮ সালে লবণ ব্যবসা শুরু করেন।তাদের ক্রয় কৃত লবণ বিক্রয় করতেন চট্টগ্রামস্থ বোয়ালখালীর পশ্চিম গোমদন্ডী এলাকার কনফিডেন সল্ট লি: এ।তবে লবণ বিক্রির সিলিপ নিতেন কক্সবাজার জেলার ঈদগাঁও এর গোয়াখালীর আলম সওদাগরের পুত্র আনচার উল্লাহ সাগরের এজেন্ট এর নামে। তারা উক্ত লবণ মিলে ২০১৮ সালের ৩১ জানুয়ারী তারিখ থেকে ২০১৮ সালের ২০ মে পর্যন্ত দফায় দফায় ৮০ লাখ ৯হাজার ৩শত ৬০ টাকার লবণ বিক্রি করেন।বিক্রি কৃত লবণের উল্লেখিত টাকা থেকে দফায় দফায় ৫৯ লাখ ৩০ হাজার টাকা পান।বাকী অারো ২০লাখ ৭৯ হাজার ৩শত ৬০ টাকা পান আনচার উল্লাহ সাগর থেকে। উক্ত টাকা আজ দেবে কাল দেবে বলে বিভিন্ন ভাবে তালবাহনা করে আসছেন।এমনকি এ টাকা না দেয়ায় চকরিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান সাঈদীর কাছে আনচার উল্লাহ সাগরের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করেন বদরখালীর জালাল উদ্দীন গং। এতে টাকা পরিশোধ করার অঙ্গীকার করে সিকি পরিমান টাকা ও না দিয়ে আত্বগোপনে চলে যায়।এতে কোন উপায় না দেখে ক্ষতিগ্রস্থ জালাল উদ্দীন গংরা ঐ আনচার উল্লাহ গং এর বিরুদ্ধে কক্সবাজার ৩ আসনের সাবেক সাংসদ লুৎফুর রহমান কাজলের ছোট ভাই মশিউর রহমান রাজনের কাছে পূনরায় বিচার দেন। এতে ও পরিশোধ করার অঙ্গীকার করে আত্বগোপন হয়ে যান।অপরদিকে এডভোকেট শিমুল ও নুরু ছফা মেন্বারের সমন্বয়ে একটি বিচারের বৈঠক বসে। বৈঠকের সিদ্ধান্ত ও প্রত্যাখান করে চলে যান আনচার উল্লাহ সাগর ।এ ভাবে দীর্ঘ আড়াই বছর ধরে কাল বিলম্ব করে আসছেন উক্ত আনচার উল্লাহ সাগর। এমন কি উক্ত টাকা পরিশোধ না করা কৌশল হিসেবে ঈদগাঁও বাজারস্থ তার অফিসটি গুটিয়ে আত্বগোপন হয়ে যান ।ফলে বদরখালীর ক্ষতিগ্রস্থ লবণ ব্যবসায়ী জালাল গংদের প্রাণ এখন যায় যায় অবস্হা হয়েছে।এ বিষয়ে জানতে তার মোবাইলে ফোন করা হলে ফোনটি বন্ধ থাকায় অভিযুক্ত আনচার উল্লাহ সাগরের বক্তব্য নেয়া সন্ভব হয়নি।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

doeltv38GRD5838
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By ATM News