শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:৩৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :

দক্ষিণ সুনামগঞ্জের তেরহালে মুদির দোকান লুটপাটের অভিযোগ “

  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ১৩ নভেম্বর, ২০২০, ৬.৫৯ পিএম
  • ৭৪ বার পঠিত

দক্ষিণ সুনামগঞ্জের তেরহালে মুদির দোকান লুটপাটের অভিযোগ

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:: দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার শিমুলবাক ইউনিয়নের তেরহাল পয়েন্টের একটি মুদির দোকানে পূর্ব বিরোধের জের ধরে দিনদুপুরে প্রতিপক্ষের লুটপাটে ১ লক্ষ ৬৩ হাজার ৯ শত টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

 

তেরহাল গ্রামের আফতাই মিয়ার পুত্র ইশাদ মিয়া(৩৭), সোনাই মিয়ার পুত্র আঙ্গুর মিয়া(২৪) ও মৃত তারা মিয়ার পুত্র রাসেল মিয়া(২৩) গংদের বিরুদ্ধে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানায় লুটপাটের একটি অভিযোগটি দায়ের করেন একই গ্রামের মৃত আব্দুল আজিজের পুত্র মিলন মিয়া(২৬)।

 

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গতকাল সকাল ৮ টায় উপরে নামাংকিত বিবাদীগণ দেশীয় অস্ত্র রামদা, ঢেগার, সুলফি, লোহার রড ও কাঠের রোল নিয়ে মিলন মিয়ার দোকানে ডুকে প্রাণনাশের ভয় দেখিয়ে লুটপাট চালায়। তারা লুটপাট চালিয়ে দোকানে থাকা বিভিন্ন মালামাল নিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি দোকানের ক্যাশবাক্সে থাকা প্রায় ১ লাখ ৫০ হাজার ২শত টাকাও নিয়ে যায়। লুটপাটের পর দোকানে আসবাবপত্র ভাংচুর করে প্রায় ৩০ হাজার টাকার ক্ষতিসাধন করেছে বলেও অভিযোগে উল্লেখ করা হয়।

 

 

 

অভিযোগকারী মুদির দোকানী মিলন মিয়া বলেন, বিবাদীরা আমাকে একা পেয়ে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আমার দোকানে ডুকে লুটপাট চালায়। তারা আমার গলায় রামদা লাগিয়ে ভয় দেখিয়ে দোকানের ক্যাশবাক্স থেকে দেড় লাখ টাকা নিয়ে যায়। শুধু লুটপাটই নয় তারা আমার উপরেও হামলা চালিয়েছে। আমি প্রশাসনের কাছে জোর দাবী জানাচ্ছি দ্রুত যেন অভিযুক্তদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান করা হয়।

 

প্রত্যক্ষদর্শী আশরাফ মিয়া বলেন, ইশাদ মিয়া, আঙ্গুর মিয়া ও রাসেল মিয়া মিলনের দোকানে ডুকে লুটপাট চালিয়ে দোকানে ভাংচুর করে ক্যাশবাক্স থেকে নগদ টাকা হাতিয়ে নিয়ে যায়।

 

তেরহাল পয়েন্টের আরেক ব্যবসায়ী রাজু মিয়া বলেন, আমি দোকানে ছিলাম না। যখন দোকানে আসলাম তখন শুনেছি এখানে কয়েকজন লোক এসে মিলনের দোকানে লুটপাট করে মালামাল নিয়ে গেছে।

 

 

 

রেকন মিয়া নামের আরেকজন বলেন, পূর্ব বিরোধের জের ধরেই মিলনের দোকানে লুটপাট চালিয়েছে প্রতিপক্ষ। তারা দাঙ্গাবাজ হওয়ার এলাকার মানুষ তাদের বিরুদ্ধে কথা বলতে ভয় পায়।

 

মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে অভিযোক্তদের পক্ষে বোরহান উদ্দিন বলেন, দিনদুপুরে একটি গ্রামের দোকানে জনতার সম্মুখে লুটপাট কল্পনা ও করা যায় না। এটি একটি ষড়যন্ত্র।

 

এ ব্যাপারে তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই জহিরুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি তদন্তাধীন রয়েছে প্রাথমিক তদন্তে আংশিক সত্যতা পাওয়া গেছে।

 

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) কাজী মুক্তাদীর হোসেন বলেন, অভিযোগ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছে, তদন্ত মোতাবেক সত্যতা যাচাই করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

রিপোর্টঃ পলাশ দেবনাথ দৈনিক এটিএম নিউজ সিলেট।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

doeltv38GRD5838
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By ATM News