মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ০২:০৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :

কী খাওয়াচ্ছে সিলেটের রেস্টুরেন্ট ও বেকারিগুলো?

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০২০, ৩.২৪ পিএম
  • ২৫৫ বার পঠিত

কী খাওয়াচ্ছে সিলেটের রেস্টুরেন্ট ও বেকারিগুলো?

 

সিলেট নগরীর প্রাণকেন্দ্র জিন্দাবাজারে অবস্থিত পাঁচভাই ও পানসী রেস্টুরেন্ট। সিলেটের বাইরেও রয়েছে এই দুই রেস্টুরেন্টের সুনাম। পর্যটকদের কাছেও পছন্দের রেস্টুরেন্ট এগুলো। কিন্তু জনপ্রিয় এই রেস্টুরেন্ট দুটিতেই খাবারে মেশানো হচ্ছে বিষাক্ত রাসায়নিক, মানব শরীরের জন্য ক্ষতিকর রঙ। গত ৭ ডিসেম্বর র‌্যাব ও ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের কয়েকটি অভিযানে ওঠে এসেছে এমন চিত্র। এসব রেস্টুরেন্টে খাবার খেতে আসা মানুষকে দেওয়া হয় পচা বাসি আর রাসায়নিকযুক্ত খাবার।

 

কেবল রেস্টুরেন্টগুলোই নয়, একই অবস্থা বেকারি পণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোতেও। অপরিচ্ছন্ন পরিবেশে এসব প্রতিষ্ঠানে তৈরি করা হচ্ছে মিষ্টি, বিস্কুটসহ বিভিন্ন ভোগ্যপণ্য। বৃহস্পতিবার ফিজা, বনফুল, ওয়েল ফুড, মধুবনসহ বিভিন্ন বেকারি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালিয়ে এমন অপরিচ্ছন্নতার প্রমাণ মিলেছে।

 

 

 

 

সিলেটের রেস্টুরেন্ট ও ভোগ্যপণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর এমন অস্বাস্থ্যকর চিত্রে প্রশ্ন উঠেছে মানুষ কী খাচ্ছে?

 

সিলেটের বাসিন্দা বিশিষ্ট আবৃত্তি শিল্পী মোকাদ্দেস বাবুল বলেন, মাঝে মাঝে অভিযান চালালে তারা জরিমানা দিয়েই ছাড় পেয়ে যায়। কিন্তু সারা বছর ধরে মানুষকে মুখরোচক খাবারের নামে যারা বিষ খাওয়াচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে কঠিন ব্যবস্থা গ্রহণ করা উচিত।গত ৭ ডিসেম্বর সিলেটের পাঁচ ভাই ও পানসী রেস্টেুরেন্টে যায় র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদাত। ক্ষতিকর কেমিক্যাল, খাবারে কাপড়ের রঙ মেশানোর দায়ে মোট সাড়ে ছয় লাখ টাকা জরিমানা করা হয় রেস্টুরেন্ট দুটিকে।

 

এর মধ্যে অস্বাস্থ্যকর ও নোংরা পরিবেশে খাদ্য তৈরি ও পরিবেশন এবং খাবারে কেমিক্যাল ও বিষাক্ত রং মেশানোসহ বিভিন্ন অপরাধে পাঁচ ভাই রেস্টুরেন্টকে ৩ লক্ষ এবং পানসি রেস্টুরেন্টে খাবারে কাপড়ের রঙ, পচা খাবার, মেয়াদোত্তীর্ণ ফুড ফ্লেভার ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার সংরক্ষণের অপরাধে সাড়ে ৩ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

 

এই অভিযানের দুদিন পর বুধবার (৯ ডিসেম্বর) জিন্দাবাজার এলাকার পালকী রেস্টুরেন্ট ও কাজী এ্যাসপ্যারাগাসে অভিযান চালায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। অপরিচ্ছন্ন পরিবেশ, মেয়াদোত্তীর্ণ ও ভেজাল খাদ্য বিক্রির অভিযোগে দুই প্রতিষ্ঠানকে ৪২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

 

অভিযানে কাজী এ্যাসপ্যারগাসের ৫টি প্রতিষ্ঠানে মেয়াদউত্তীর্ণ খাবার থাকায় ৩২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এছাড়া মূল্যতালিকা গ্রাহকদের কাছে সরবরাহ না করায় পালকি রেস্টুরেন্টকে দশ হাজার টাকা জরিমানা করে।

 

অভিযানকালে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরকে সহায়তা করে র‌্যাব-৯।বৃহস্পতিবার (১০ ডিসেম্বর) অভিযান চালানো হয় নগরীর গোটাটিকর এলাকায় বিসিক শিল্প নগরীর ফিজা এন্ড কোং-এ। ভোগ্যপণ্য উৎপাদনকারী এ প্রতিষ্ঠানে নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার প্রস্তুতসহ নানা অনিয়মের অভিযোগে লক্ষ টাকা জরিমানা করেছে র‍্যাব-৯ এর ভ্রাম্যমাণ আদালত।

 

অভিযান শেষে র‌্যাব-৯ সিলেটের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আখতারুজ্জামান উপস্থিত সাংবাদিকদের জানান, অভিযানকালে ড্রেনের পাশে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে মিষ্টি তৈরি ও সংরক্ষণসহ স্যাঁতসেঁতে দুর্গন্ধযুক্ত স্থানে তৈরি করা মিষ্টি রাখা ছিলো। এছাড়া এসব পণ্য প্রস্তুত ও প্যাকেটজাত করার কাজে নিয়োজিত কর্মীরাও মানছেন না স্বাস্থ্যবিধি। এদিকে খাদ্য উৎপাদন ফ্যাক্টরি ব্যবস্থাপনার ত্রুটিও ধরা পড়ছে বলে জানান তিনি।

 

একিইদিনে খাদিম বিসিক শিল্প নগরীতে অভিযান চালিয়ে অপরিচ্ছন্ন পরিবেশের দায়ে ভোগ্যপণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ফুলকলিকে ৫ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

 

জরিমানা করা হয়েছে ওয়েল ফুড এবং মুধবনকেও।

 

র‌্যাবের নির্বাহী মাজিস্ট্রেট মো. আখতারুজ্জামান জানান, পরবর্তীতে এ সকল কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থাকতে সব প্রতিষ্ঠানকে সতর্ক করা হয়েছে। নিয়মিত বাজার মনিটরিংয়ের অংশ হিসেবে এ ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

 

রিপোর্ট :পলাশ দেবনাথ এটিএম নিউজ টিভি

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

doeltv38GRD5838
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By ATM News